২রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ || ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ


শিরোনাম :
  নন্দীগ্রাম পুরাতন বাজারে সরকারি জায়গা দখল করে পাকা ঘড় নির্মান       ব্রাহ্মণবাড়িয়া বাঞ্ছারামপুরে মসজিদে প্রেমিকা নিয়ে জনতার হাতে আটক ইমাম উদ্ধার করেছে পুলিশ          প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ও তার পরিবারের সুস্থতার জন্য দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত       মানবসেবায় নিউ জেনারেশ ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন       বিনামূল্যে আইনগত সহায়তার বিষয়টি সরাসরি গ্রামাঞ্চলে প্রকাশ পাচ্ছে       নন্দীগ্রামে স্বামীর জন্য সহযোগিতা চাইলেন মেয়র প্রার্থীর সহধর্মীনী       খুলনা বিভাগীয় কমিশনার টুটুপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিদর্শন       নন্দীগ্রামে সবজির বাজারে স্বস্তি, চড়া চালের দাম       নতুন প্রেম – জে এস সাহাদত হোসেন সাহীন       নন্দীগ্রামে কৃষকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার    


দুর্গাপূজায় জাল টাকা ছড়ানোর পরিকল্পনা ছিল তাদের

বিশেষ প্রতিনিধি, এসইটিভি নিউজ:

আসন্ন দুর্গাপূজাকে টার্গেট করে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় জাল টাকা ছড়িয়ে দিতে চেয়েছিল একটি চক্র। সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) অভিযান চালিয়ে রাজধানীর ডেমরা এলাকা থেকে এই চক্রের ৪ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ডিএমপির সাইবার অ্যান্ড স্পেশাল ক্রাইম বিভাগের একটি টিম।

 

গ্রেফতাররা হলেন- মো. ইউসুফ আলী, আব্দুর রহিম ওরফে হেলাল হোসেন রহিম, ফজলে রাব্বী মিয়া ও মো. জাহিদ ইসলাম। এ সময় তাদের কাছ থেকে ৬৫ লাখ টাকার জাল নোট ও জাল টাকা তৈরির সরঞ্জামাদি জব্দ করা হয়।

মঙ্গলবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ডিবি) এ কে এম হাফিজ আক্তার বলেন, রাজধানী ও দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে জাল টাকার নোট উৎপাদনকারীরা ঈদ, পূজা ও বড় উৎসবকে টার্গেট করে বাজারে জাল নোট ছড়িয়ে দিতো। এক লাখ টাকার জাল নোট তৈরি করতে খরচ হয় দশ হাজার টাকা। পরবর্তীতে এক লাখ টাকার জাল নোট পাইকারির কাছে বিক্রি করতো পনেরো হাজার টাকায়। পাইকারি বিক্রেতা প্রথম খুচরা বিক্রেতার কাছে বিক্রি করতো বিশ থেকে পঁচিশ হাজার টাকায়। পরবর্তী ধাপে প্রথম খুচরা বিক্রেতা দ্বিতীয় খুচরা বিক্রেতার কাছে বিক্রি করতো ৪০ থেকে ৪৫ হাজার টাকায়।

 

জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়, মাঠ পর্যায়ে তাদের কর্মীরা নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কিনে এই জাল টাকা বাজারে সরবরাহ করতো। গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে ডেমরা থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

এসইটিভি নিউজ/বার্তা বিভাগ


Top