১৬ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ || ২রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ


শিরোনাম :
  নন্দীগ্রামে দুই ইউনিয়নের ২৯ গ্রামে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি       সাভা‌রে টায়ার রিকুট ক‌রে উৎপাদন করা তেল ব‌্যবহার হচ্ছে রাস্তা নির্মান কা‌জে       নন্দীগ্রামে ২২ লক্ষ টাকা ব্যায়ে আর সি সি রাস্তা ঢালাই কাজের উদ্বোধন করলেন পৌর মেয়র       নন্দীগ্রাম থানার নবাগত ওসির সাথে পৌর মেয়রের মতবিনিময়       নন্দীগ্রামে ওয়ারেন্টমূলে ৭ মামলার আসামি গ্রেপ্তার       নন্দীগ্রামে নির্মাণ শ্রমিকদের দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ উদ্বোধন       নন্দীগ্রামে আইন শৃংখলা কমিটিরি সভা অনুষ্ঠিত       নন্দীগ্রামে আরো ৮০ টি গৃহহীন পরিবার বাসগৃহ পাচ্ছে       নন্দীগ্রাম থানার নবাগত অফিসার ইনচার্জের সাথে সাংবাদিকদের মতবিনিময়       নন্দীগ্রামে সাংবাদিক নেতাদের সাথে থানার নবাগত ওসির মতবিনিময়    


গুরুদাসপুরে অজ্ঞাত নারী হত্যার রহস্য উন্মোচিত,গ্রেফতার-১

নিজস্ব প্রতিনিধি এসইটিভি নিউজ:

নাটোরের গুরুদাসপুরে পাটক্ষেত থেকে উদ্ধার হওয়া অজ্ঞাত মহিলার লাশ শনাক্ত করে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় তার খুনিকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ।

আজ রবিবার (৬জুন) দুপুর ১২টায় গুরুদাসপুর থানায় প্রেসব্রিফিংয়ে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মো. জামিল আকতার (সিংড়া সার্কেল) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, অজ্ঞাত মহিলার নাম রাখী খাতুন (২৬)। তিনি রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার তালধারি গ্রামের মসলেম উদ্দিনের মেয়ে। বছর দেড়েক আগে রাজশাহীর তানোর উপজেলার চান্দুরিয়া গ্রামের ফজলুর রহমানের ছেলে মিলন ইকবালের (৩৪) সাথে তার বিয়ে হয়। রাখীর ২য় স্বামী মিলন এবং মিলনেরও ২য় স্ত্রী রাখী। মিলন ঢাকার ডিবিএল গার্মেন্টে প্রতিমাসে ১৪ হাজার টাকা বেতনের চাকরি করেন। তারমধ্যে ১০ হাজার টাকা রাখীকে দিতেন। রাখী বেহিসেবী জীবনযাপন করায় মাসের মাঝামাঝিতে আরো টাকার জন্য চাপ দিতো। এ কারণে ৩য় স্ত্রী তাহমিনাকে ঠিকভাবে দেখাশোনা করতে পারতো না মিলন। রাখীর বেপরোয়া চলায় বিষিয়ে ওঠেন তিনি। একপর্যায়ে ৩১ মে সন্ধ্যায় গাজীপুরের শ্রীপুর থেকে স্ত্রী রাখীকে নিয়ে বাসযোগে এক আত্মীয়ের বাড়ীতে বেড়াতে আসার নাম করে রওনা দেন। বাস থেকে রাত ১টার দিকে গুরুদাসপুর মহাসড়কের ১০ নম্বর ব্রিজে নামেন তারা। পরে কৌশলে ব্রিজের পাশেই পাটক্ষেতে নিয়ে গিয়ে রাখীকে হাতুরি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে পালিয়ে যায় মিলন।

হত্যাকান্ডের পরদিন রাত ১টার দিকে রাখীর লাশ উদ্ধার করে গুরুদাসপুর থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। তাৎক্ষনিকভাবে নাটোরের পিবিআই ও সিআইডি ক্রাইম পুলিশ নিহতের আঙ্গুলের ছাপ ট্রেস করে জানতে পারে তার বাড়ী গোদাগাড়ী উপজেলায়। খবর পেয়ে রাখীর বোন মুরসালীন ও পারভীন লাশ শনাক্ত করেন।

গুরুদাসপুর থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, মিলন ইকবালের মোবাইল ফোন ট্র্যাকিং করে ঠিকানা নিশ্চিত হয়ে ৩য় স্ত্রী তাহমিনার বাবার বাড়ী গোদাগাড়ী উপজেলার পাকড়ীগ্রাম থেকে শনিবার তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে গ্রেপ্তার অভিযান চালান ওসি (তদন্ত) মোনোয়ারুল ইসলাম। নিহত রাখীর ভাই মোশারফ হোসেন গুরুদাসপুর থানায় মিলনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। তাকে নাটোর কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

এসইটিভি নিউজ/রাজু


Top